অবসর সময় পেলে ইউটিউবে কিছু কিছু ভিডিও দেখি। বহু দিন থেকে নাস্তিকতার উপর বিভিন্ন ডিবেইট দেখি। ভালোই লাগে। বড় বড় নাস্তিকদের অধিকাংশ ডিবেইট দেখছি। অনেকগুলো অলরেডি দেখা শেষ হয়েছে।

সবার মধ্যে কয়েকটা কমন জিনিস লক্ষ্য করেছি।

১. স্রষ্টা নেই, এটা নিশ্চিতভাবে বলার মতো কোন প্রমাণ না থাকলেও বিভিন্নভাবে ঘুরিয়ে পেচিয়ে নিজের মতকে প্রমাণ করার চেষ্টা করা। এধরণের প্রচেষ্টা আমার কাছে হাস্যকর।

২. নাস্তিকতা আসলে একটা ধর্ম বিশ্বাস। অন্যান্য ধর্মের সাথে পার্থক্য এতটুকু যে, অন্যান্য ধর্মের লোকেরা নিজেদের অনেক জ্ঞানী বা পন্ডিত দাবী করে না, কিন্তু অধিকাংশ নাস্তিক নিজেকে একটু জ্ঞানী বা পন্ডিত মনে করে।

বাস্তবতা বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, নাস্তিকতার পেছনে তার এমন কোন প্রমাণ নেই যা তার অতিরিক্ত অহংকারের সহায়ক হতে পারে। ডারইউনের থিউরি, স্ট্রিং থিউরি, ইশ্বর কণা, অমুক-তমুক এগুলো দিয়ে আসলে কিছু প্রমাণিত হয় না। অন্তত স্রষ্টা না থাকর মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তো নয়ই।

এসব থিউরি নাস্তিকদের টাইম পাসের একটা মাধ্যম। নাস্তিকতার আলোচনায় এসব থিউরি আমার কাছে গার্বেজ ছাড়া আর কিছুই মনে হয়নি। এগুলো দিয়ে কিছু হাই থটের কথা বলে মূল প্রসঙ্গ থেকে সরে টাইম পাস ছাড়া আর তেমন কিছু হওয়ার কথা নয়।

৩. নাস্তিকতার যেই বিশ্বাস কিছু মানুষ লালন করে, সেখান থেকে আসলে পাওয়ার কিছু নেই। সমস্ত যুক্তি তর্কের উর্ধ্বে গিয়ে পরিণতিটা আমাকে ভাবতে হবে। নাস্তিকতা না আমার জীবনের কোন প্রশ্নের সমাধান দেয়। না জীবনের কোন উদ্দেশ্য বলতে পারে। না মানুষকে ভালো মন্দের বিচারে কোন গাইড করতে পারে।

যেখানে আমার পাওয়ার কিছু নেই, সেখানে আমি সময় নষ্ট করবো কেন? আজ পর্যন্ত কোন নাস্তিক কি বলতে পেরেছে এসমস্ত সৃষ্টি কোথা থেকে এলো? বিগ-ব্যাং টিগব্যাং অনেক পুরাতন বিষয়। এগুলো দিয়ে তো আর মৃল সৃষ্টির সূচনার সমাধান হয় না।

ডিবেইটগুলো দেখছি। আল-হামদুলিল্লাহ, আমার বিশ্বাসের জায়গাগুলো আরও মজবুত হচ্ছে। সত্য কথা হলো, মানুষ নাস্তিক হওয়ার পেছনে কোন প্রমাণ ও যুক্তি থাকতে পারে না।

সর্বোচ্চ এতটুকু বলতে পারে, স্রষ্টা আছে কি নেই, সেটা আমি জানি না।

কিন্তু দাম্ভিকতার সাথে স্রষ্টা নেই বলে দেয়া কপটতা ও মূর্খতা ছাড়া কিছুই নয়। ডিবেইটগুলো দেখার পরে এগুলো আমার ব্যক্তিগত উপলব্ধি। পরে হয়তো আরও বিস্তারিত লিখবো ইনশা আল্লাহ।

Print Friendly