iDEA

islamic dawah and education academy

Category: মাযহাব (Page 2 of 2)

বোখারী মুসলিমে থাকলেই কি হাদীস প্রাধান্য পাবে?

শায়খ মুহাম্মাদ আওয়ামা

একজন প্রাথমিক স্তরের তালিবুল ইলমও অবগত রয়েছে, শরিয়তের অনেক মাসআলায় পরস্পর বিরোধী একাধিক হাদিস থাকে। কখনও একই বিষয়ে দু’য়ের অধিক অর্থের সম্ভাবনা থাকে। এই বিরোধ নিরসনে উলামায়ে কেরাম নীচের পদ্ধতিগুলো আলোচনা করেছেন,
প্রথম পদ্ধতি:
১. পরস্পর বিরোধী হাদিস দু’টির মাঝে এমনভাবে সমন্বয় করা যে উভয়টার উপর আমল করা সম্ভব হয়।
২. অথবা উভয়টা ব্যাখ্যা করা।
৩. অর্থের মাঝে সমন্বয় করার চেষ্টা করা।
দ্বিতীয় পদ্ধতি: উভয়টার মাঝে সমন্বয় সাধন সম্ভব না হলে একটিকে রহিত সাব্যস্ত করা।
তৃতীয় পদ্ধতি: আর যদি একটাকে রহিত প্রমাণ করা সম্ভব না হয় এবং রহিত হওয়ার দলিল না পাওয়া যায়, তবে দু’টোর যে কোন একটাকে প্রাধান্য দেয়া।
আলেমদের মাঝে কেউ কেউ তৃতীয় পদ্ধতিকে দ্বিতীয় পদ্ধতির উপর প্রাধান্য দিয়েছেন। অর্থাৎ প্রথমে সমন্বয় সাধন এরপর, প্রাধান্য দান অত:পর, রহিতকরণ।

Read More

ইমামগণের মতভিন্নতার বড় কারণ কি হাদীস না জানা কিংবা না মানা?

মাওলানা আব্দুল মালেক সাহেব হাফিযাহুল্লাহ এর ”উম্মতের ঐক্য পথ ও পন্থা ” থেকে সংগ্রহিত।

অনেকে মনে করেন, অধিকাংশ বিষয়ে মতভিন্নতার মৌলিক কারণ হল, সংশ্লিষ্ট বিষয়ের প্রতিপক্ষের হাদীস সম্পর্কে অবহিত না থাকা বা সহীহ হাদীস পরিত্যাগ করে যুক্তি বা কিয়াসের আশ্রয় গ্রহণ করা। অথচ আইম্মায়ে দ্বীন ও উলামায়ে হকের যে মতভিন্নতা সে সম্পর্কে এ ধারণা মোটেও সঠিক নয়। কেননা তাদের কেউ কিয়াস বা যুক্তিকে হাদীসের উপর প্রাধান্য দেন না। তাদের কোনো কোনো ফতওয়া যদিও সংশ্লিষ্ট বিষয়ের হাদীসের ব্যাপারে অবগতি না থাকার কারণে প্রকাশিত হয়েছে, কিন্তু এর সংখ্যা নিতান্তই কম।

আহলে হক উলামায়ে কেরামের মধ্যে বিদ্যমান মতভিন্নতার অধিকাংশের মূলেই ইখতিলাফে মাহমুদ বা ইখতিলাফে মাশরূ-এর শরীয়ত স্বীকৃত বাস্তবিক কারণ বিদ্যমান রয়েছে। এজন্য হাদীসের ইমামগণের মধ্যেও বহু বিষয়ে ইখতিলাফ হয়েছে। ইমাম আহমদ, ইমাম আলী ইবনুল মাদীনী, ইসহাক ইবনে রাহুয়াহ, ইমাম বুখারী, ইমাম মুসলিম, ইমাম তিরমিযী, ইবনে খুযাইমা, ইবনে হিববান, দাউদ জাহেরী, ইবনে হাযম জাহেরী তাদের ব্যাপারে হাদীসের বিরোধিতা বা হাদীসের ব্যাপারে অনবগতির অভিযোগ কি কেউ করতে পারে?

Read More

প্রায় সকল সাহাবী মুকাল্লিদ ছিলেন

শিরোনাম দেখেই হয়তো গায়রে মুকাল্লিদ ভাইদের মন খারাপ হয়ে গিয়েছে। আমার কি দোষ বলে্ন ভাই? সত্যি কথাতো বলতেই হবে। আজকে আমি এ ব্যাপারে এমন দুজন ব্যাক্তির কথাকে পেশ করবো যারা গায়রে মুকাল্লিদ ভাইদের কাছেও গ্রহনযোগ্য আলেম এবং তারাও এ দুজন ব্যাক্তিকে সালাফ মনে করেন।

এ দুই জন বিখ্যাত আলেম হলেন –

  • (১) আলী ইবনুল মাদিনী রহঃ , (ইমাম বুখারী রাহঃ এর বিশিষ্ট উস্তাদ) ।
  • (২) ইবনুল কাইউম জাওজী রহঃ , (ইবনে তাইমিয়া রাহঃ এর বিশিষ্ট ছাত্র) ।

 

এবার তাদের কথাগুলো বলি-

Read More

Page 2 of 2

Designed By ijharul islam & Copyright iDEA